ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৫ ডিসেম্বর ২০১৯ , , ৭ রবিউস সানি ১৪৪১

দুবাই নলেজ পার্কে সেখানকার কর্তাব্যক্তিদের সঙ্গে টিম ইডিইউ

আর্ন্তজাতিক ডেস্ক । সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: নভেম্বর ২৭, ২০১৯ ১২:৪৬ দুপুর

স্বপ্নকে বাস্তবতায় পরিণত হতে দেখছেন ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটির (ইডিইউ) ইন্টারন্যাশনাল গ্র্যাজুয়েট লিডারশিপ এক্সপেরিয়েন্স (আইজিএলই) কোর্সে দুবাই-আবুধাবি যাওয়া শিক্ষার্থীরা। প্রতিদিনই বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থান পরিদর্শন ও ওয়ার্কশপ-সেশনে অংশ নিতে তারা পার করছেন খুবই ব্যস্ত, কিন্তু একই সাথে জীবনের অন্যতম চমৎকার কিছু সময়।

গতকাল ২৬ নভেম্বর মঙ্গলবার দুবাইতে টিম ইডিইউ’র তৃতীয় দিন। মানবসম্পদ ব্যবস্থাপনা, ব্যক্তিগত ও পেশাগত উন্নতি সংক্রান্ত বিভিন্ন ধরণের ডিপ্লোমা কোর্স, স্নাতকোত্তর প্রোগ্রাম পরিচালনার জন্য বিখ্যাত দুবাই নলেজ পার্কে সকাল থেকেই বেশ কয়েকটি সেশনে উপস্থিত হয়েছেন তারা।

দুবাইকে জ্ঞাননির্ভর অর্থনৈতিক অঞ্চলে প্রতিষ্ঠিত করতে ২০০৩ সালে চালু হয় নলেজ পার্ক। এখানে আমিরাতের অন্যতম বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান টেকম গ্রুপের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা শাজাদী দুররানি ‘আন্ডারস্ট্যান্ডিং দ্য কালচারাল মিক্স অব ইন্টারন্যাশনাল স্টুডেন্ট’ শীর্ষক সেশন পরিচালনা করেন। বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আগত শিক্ষার্থী ও ব্যক্তিবর্গের সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্য সম্পর্কে জানাশোনা এবং তাদের সঙ্গে বোঝাপোড়া বাড়ানোর নানা দিক ও কৌশল সম্পর্কে প্রায়োগিক এ কর্মশালায় শেখানো হয়।

এছাড়া ২৫ নভেম্বর সোমবার প্রাক্তন ব্যাংকার ও বর্তমানে একটি আন্তর্জাতিক পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের পরিচালক উজায়ের হাসানের সঙ্গে লিডারশিপ ও ইমোশনাল ইন্টেলিজেন্স নিয়ে দিনব্যাপী কয়েকটি সেশনে মিলিত হয় টিম ইডিইউ। এতে গুরুত্বপূর্ণ লেকচারের পাশাপাশি বিভিন্ন ধরণের এক্টিভিটির মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের কর্মজীবন ও চারপাশের মানুষগুলো সম্পর্কে ধারণা দিয়েছেন উজায়ের।

আইজিএলই কোর্সের প্রথম দিন ২৪ নভেম্বর ইডিইউর শিক্ষার্থীদের ওয়ার্কশপ পরিচালনা করেন এমন দুজন বাংলাদেশি, যারা আমিরাতে দীর্ঘদিন ধরে দুটো বড় প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ পদে কর্মরত আছেন। তারা হলেন আমিরাত এনবিডি’র গ্রুপ ক্রেডিট এর ভাইস প্রেসিডেন্ট রাহিদ খন্দকার এবং বিশ্বখ্যাত কম্পিউটার প্রতিষ্ঠান আইবিএম এর সফটওয়্যার ক্লায়েন্ট আর্কিটেক্ট সোহরাব সায়ীদ। বর্তমান সময়ে ইন্ডাস্ট্রিতে স্ট্রাটেজিক প্ল্যানিং এবং ডিজিটাল ট্রান্সফর্মেশনের গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা করেন তারা। একই সাথে কিভাবে একটি হার্ডওয়্যার নির্মাতা প্রতিষ্ঠান থেকে কম্পিউটার জগতের প্রতিটি ক্ষেত্রে বিশ্বের সবচেয়ে বড় প্রতিষ্ঠান হয়ে উঠেছে, তা নিয়েও বিশদ কথা বলেন। এ সময় তারা আমিরাতে, বিশেষত আইবিএম’র মতো প্রতিষ্ঠানগুলোতে বাংলাদেশিদের কাজের সম্ভাবনা নিয়েও কথা বলেন।

আইজিএলই কোর্সে দুজন বাংলাদেশিকে যুক্ত করার কারণ শুধুমাত্র কর্মক্ষেত্রে তাদের দক্ষতা নয়, একই সাথে প্রবাসী হিসেবে আমিরাতে কাজের সমস্যা-সম্ভাবনার অভিজ্ঞতা ও অর্জিত শিক্ষা সম্পর্কে জানাটাও ছিলো অন্যতম উদ্দেশ্য, বলেন ইডিইউর প্রতিষ্ঠাতা ভাইস চেয়ারম্যান সাঈদ আল নোমান।

তিনি আরো বলেন, আইজিএলই শুধুমাত্র একটি কোর্স নয়, এটি আমাদের শিক্ষার্থীদের জন্য লাইফটাইম এচিভমেন্ট। এ অভিজ্ঞতা তাদের জীবনে চলার পথে অন্যতম পাথেয় হিসেবে কাজ করবে।

শিক্ষার্থী মাইমুনা মানিতা বলেন, বিদেশের সংস্কৃতি, তাদের মানুষজনের সাথে কাজ করার ইচ্ছে বহুদিনের। ইডিইউর এই কোর্সে সেই সুযোগটা পাচ্ছি। একেবারে ভিন্ন একটি পরিবেশে নিজেদের সক্ষমতাকে আমরা নিরূপণ করতে পারছি নতুন করে।

উল্লেখ, আগামী ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত দুবাই এবং আমিরাতে অবস্থান করে কালচারাল হেরিটেজ সাইট, গ্লোবাল ভিলেজ, শেখ যায়েদ ইউনিভার্সিটি, ফ্রি জোন, লেবার ক্যাম্পসহ প্রতিদিনই বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান পরিদর্শন ও কর্মশালায় অংশ নেবে টিম ইডিইউ।




%d bloggers like this: