ঢাকা, শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯ , , ১৫ রবিউস সানি ১৪৪১

হাইকোর্টে ক্ষমা চাইলেন র‌্যাবের ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম

স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা । সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: ডিসেম্বর ১, ২০১৯ ১১:৫৯ সকাল

ভ্রাম্যমাণ আদালতে সাজা দেওয়ার চার মাস পরেও আদেশের প্রত্যয়িত অনুলিপি না দেওয়ার ঘটনায় হাইকোর্টে দুঃখ প্রকাশ করেছেন র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাবের) নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সারোয়ার আলম।

রোববার (০১ ডিসেম্বর) হাইকোর্টের বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ হাজির হয়ে তিনি দুঃখ প্রকাশ করেন। আদালতে দুঃখপ্রকাশ করে সারওয়ার আলম বলেছেন, ‘ভবিষ্যতে এ বিষয়ে সতর্ক থাকব।’

তিনি আদালতে বলেন, একদিনে বিভিন্ন জায়গায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। পরে ঢাকায় ফিরে এসে রায় লিখতে হয়। এ কারণে আদেশের কপি সময় মতো দেয়া সম্ভব হয়নি।

পরিপ্রেক্ষিতে আদালত র‌্যাবকে মোবাইল কোর্ট পরিচালনার ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় জনবল ও লজিস্টিক সাপোর্ট দিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দিয়েছেন।

আদালতে সারোয়ার আলমের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মাসুদ হাসান চৌধুরী পরাগ। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ও ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত তালুকদার।

এর আগে গত ১৮ নভেম্বর সারওয়ার আলমকে তলব করে হাইকোর্ট। ভ্রাম্যমাণ আদালত এক ব্যক্তিকে সাজা দেওয়ার পর চার মাস পার হলেও আদেশের কপি না দেওয়ার ব্যাখ্যা দিতে তাকে তলব করা হয়।

সাজা দেওয়ার চার মাস পরও আদেশের কপি দেওয়ার ক্ষেত্রে নিষ্ক্রিয়তা চ্যালেঞ্জ করে মো. মিজান মিয়া ১৭ নভেম্বর রিটটি করেছিলেন।

উল্লেখ্য, ১৮ জুলাই অভিযান চালিয়ে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের তপু এন্টারপ্রাইজ নামে একটি পশুখাদ্য প্রস্তুতকরণ কারখানার ব্যবস্থাপক মিজান মিয়াকে এক বছরের কারাদণ্ড দেন। পরে ওই সাজার আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করার জন্য আদেশের কপি চান। কিন্তু সাজা দেয়ার চার মাস পরও আদেশের কপি দেয়ার ক্ষেত্রে নিষ্ক্রিয়তা চ্যালেঞ্জ করে মো. মিজান মিয়া গত ১৭ নভেম্বর রিটটি করেন।


%d bloggers like this: