ঢাকা, শুক্রবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ , , ৪ রজব ১৪৪১

১০ মাসে ৫ হাজার ধর্ষণ : সুলতানা কামাল

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট । সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: জানুয়ারি ১৬, ২০২০ ৩:০৪ দুপুর

গত ১০ মাসে পাঁচ হাজারের বেশি ধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে জানিয়েছেন মানবাধিকারকর্মী, পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) সভাপতি অ্যাডভোকেট সুলতানা কামাল।

সোমবার ‘আমরাই পারি জোটে’র ব্যানারে ঢাকায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এক প্রতীকী অনশনে এ তথ্য জানান তিনি।

অনশনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের রাতে নোয়াখালীর সুবর্ণচরে ধর্ষণের শিকার নারী তার নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলে জানিয়েছেন। ধর্ষণের পর চিকিৎসা নেয়া এবং মামলা পরিচালনায়ও তিনি প্রতিবন্ধকতার শিকার হচ্ছেন।

গত বছর ৩০ ডিসেম্বর একাদশ সংসদ নির্বাচনে রাতে উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক রুহুল আমিন ও তার সহযোগীদের কাছে ধর্ষণের শিকার হয়েছিলেন সুবর্ণচর উপজেলার মধ্যবাগ্যা গ্রামের নারী পারুল আক্তার। পরে তার স্বামী সুবর্ণচর থানায় রুহুল আমিনকে আসামি করে মামলা করেন। ইতিমধ্যে আলোচিত এই ধর্ষণ মামলায় পুলিশ অভিযোগপত্র দিয়েছে। অভিযোগ পত্রে রুহুল আমিনসহ ১৬ জনকে আসামি করা হয়। ধর্ষণের আসামি হওয়ার পর তাকে বহিষ্কার করা হয় দল থেকে।

পারুল আক্তার বলেন, আমার সাক্ষীদের ওরা টাকা দিয়ে কিনে নিয়েছে। তাদের ওরা সাক্ষী দিতে নিষেধ করছে; বলছে, সাক্ষী দিলে পারুলের মতো করবে। এখন আমি সরকারের কাছে এর ন্যায়বিচার চাই।

তিনি বলেন, ধর্ষণের পর চিকিৎসা নিতে জেলা সদরে যেতে তাকে বাধা দিয়েছিল রুহুল আমিন।

তিনি অভিযোগ করেন, কেউ আমার খোঁজ-খবর নেয় না।

‘আমরাই পারি জোট’র চেয়ারপারসন, মানবাধিকারকর্মী সুলতানা কামাল বলেন, শুধু গত ১০ মাসে পাঁচ হাজারের ওপর নারী ধর্ষণের শিকার হয়েছে। এ পরিসংখ্যান শোনার পরও আমরা কেন প্রতিবাদী হয়ে উঠিনি? কারণ আমাদের মানসিক অবস্থা এমন হয়েছে যে, বিচার চাইলেও পাব না। আমরা বিভিন্ন সময় এসব নির্যাতনের বিরুদ্ধে আন্দোলন করছি, বিভিন্ন জায়গায় কথা বলছি, কিন্তু নির্যাতন বেড়েই চলছে। এর প্রধান কারণ আমরা বিচারহীনতার সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠিত করে ফেলেছি।


%d bloggers like this: