বুধবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২১

বীর মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা হঠাৎ ২১ হাজার কমেছে

সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: নভেম্বর ২৯, ২০২০ ১৩:৪৮ পিএম

বীর মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা হঠাৎ ২১ হাজার কমেছে

দেশের প্রতিটি জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে পাঠানো তালিকার ভিত্তিতে এত দিন বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নামে মাসিক ভাতা পাঠানো হতো। কিন্তু গত অক্টোবর ও চলতি নভেম্বর মাসের ভাতা পাঠাতে গিয়ে দেখা গেছে, সংখ্যাটি হঠাৎ ২১ হাজার কমে গেছে। ভাতা পাওয়া সব বীর মুক্তিযোদ্ধার পূর্ণাঙ্গ তথ্য সম্প্রতি সরকার ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেম (এমআইএস) নামে একটি সফটওয়্যারে যুক্ত করেছে। তাতে সংখ্যার বিশাল এই হেরফের হওয়ায় প্রশ্ন উঠেছে, এত দিন তাহলে কীভাবে ২১ হাজার জনকে ভাতা দেওয়া হয়েছে।

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা বলছেন, জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্যের ভুল বা এমআইএসে নাম তোলার ক্ষেত্রে করণিক ভুলের কারণে বড়জোর এক হাজার জন বাদ পড়তে পারেন। কিন্তু বাকি ২০ হাজার জন মাসের পর মাস হয় অনিয়ম করে, নয়তো একাধিক নামে একাধিক জায়গা থেকে ভাতা তুলেছেন। কোনটি ঠিক, তা তদন্তে বেরিয়ে আসবে।

বিজ্ঞাপন

জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য এবং সরকার অনুমোদিত মুক্তিযোদ্ধার তালিকা যাচাই করেই ভাতাপ্রাপ্ত সব বীর মুক্তিযোদ্ধার নাম এমআইএসে তোলা হয়েছে গত অক্টোবরে। মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, বছরের পর বছর ধরে জেলা প্রশাসনের তালিকার ভিত্তিতেই ১ লাখ ৯২ হাজার বীর মুক্তিযোদ্ধাকে ভাতা পাঠানো হতো। কিন্তু এমআইএসে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নামের তথ্য অন্তর্ভুক্ত করার পর সংখ্যাটি ১ লাখ ৭১ হাজার হয়ে গেছে।

২০১৯ সালের জুলাই মাস থেকে একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসিক ১২ হাজার টাকা ভাতা পাচ্ছেন। এর আগে ছিল ১০ হাজার টাকা। এর মধ্যে দুই ঈদে ১০ হাজার টাকা করে ২০ হাজার টাকা, ৫ হাজার টাকা বিজয় দিবসের ভাতা এবং ২ হাজার টাকা বাংলা নববর্ষ ভাতা পান বীর মুক্তিযোদ্ধা। বছরে একজন সব মিলিয়ে ভাতা পান ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা। যদি অনিয়ম করে ২০ হাজার বীর মুক্তিযোদ্ধা এক বছর ভাতা নিয়ে থাকেন, তাহলে রাষ্ট্রের আর্থিক ক্ষতি হয়েছে ৩৪২ কোটি টাকা। পাঁচ বছরে এই ক্ষতির পরিমাণ হবে কমবেশি প্রায় ১৫ হাজার কোটি টাকা।

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত তিনজন কর্মকর্তা জানান, অনেকে শুধু বেসামরিক গেজেট দিয়ে জেলা পর্যায়ে তালিকায় বীর মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে নাম অন্তর্ভুক্ত করেছিলেন। আবার কেউ কেউ একাধিকবার বিভিন্ন তালিকায় নাম অন্তর্ভুক্ত করেছেন। যে কারণে এমআইএসে তাঁদের নাম দ্বিতীয়বার অন্তর্ভুক্ত হয়নি। কেউ কেউ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের সবুজ মুক্তিবার্তা দেখিয়ে ভাতা তুলেছেন। কারও কারও সনদ জাল বা তথ্য ত্রুটিপূর্ণ, যা এমআইএসে অন্তর্ভুক্ত হয়নি। এমআইএসে যাঁদের নাম অন্তর্ভুক্ত হয়েছে, শুধু তাঁদের গত অক্টোবর ও নভেম্বর মাসের ভাতা জেলা প্রশাসকের ব্যাংক হিসাবে পাঠানো হয়েছে। আগামী ডিসেম্বর থেকে সরাসরি বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ব্যাংক হিসাবে ভাতা জমা হবে। সঙ্গে ভাতা পাঠানোর বিষয়টি নিশ্চিত করতে মুঠোফোনে খুদে বার্তাও যাবে।

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় বলেছে, এমআইএসে অন্তর্ভুক্তির পর একসঙ্গে দুই মাসের ভাতা পাঠানো হয়েছে। এর মধ্যে এক মাসের ভাতার পরিমাণ ২০৫ কোটি ৩০ লাখ টাকা। এর আগে গত সেপ্টেম্বরে ভাতা বাবদ পাঠানো হয়েছিল ২৩০ কোটি ২৭ লাখ টাকা। বীর মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা ২১ হাজার কমে যাওয়ায় মাসে ২৫ কোটি টাকা কম লেগেছে। এর ফলে তাদের বছরে ৩৪২ কোটি টাকা সাশ্রয় হবে।

 



বিএনপি অতীতেও নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে তারা বিভিন্ন জায়গায় সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়েছে : তথ্যমন্ত্রী আওয়ামী পুলিশ বাহিনী শতভাগের চেয়ে বেশি দায়িত্ব পালন করেছে : খসরু নির্বাচনী সহিংসতা: পাহাড়তলীতে ভাইয়ের হাতে ভাই খুন বিএনপির কাউন্সিলর প্রার্থী ইসমাইল বালী আটক সৌদিতে পানির ট্যাংক পরিষ্কার করতে গিয়ে ৩ বাংলাদেশির মৃত্যু জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী : রেজাউল দেশ উন্নত হওয়ায় মানুষ ভোটে আগ্রহ হারিয়েছে: ইসি সচিব এই ভ্যাকসিনে দেশ করোনামুক্ত হবে: প্রধানমন্ত্রী সাতকানিয়া পৌর নির্বাচনে আ.লীগকে সমর্থন দিয়ে সরে গেলেন বিএনপির প্রার্থী প্রার্থীর মৃত্যুতে চসিকের ৩১নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ভোট পেছাল