বুধবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২১

বেঁচে আছেন আবদুল কাদের, মৃত্যুর গুজবে বিভ্রান্ত পরিবার

সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: ডিসেম্বর ২৪, ২০২০ ২১:০২ পিএম

বেঁচে আছেন আবদুল কাদের, মৃত্যুর গুজবে বিভ্রান্ত পরিবার

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট :: অভিনেতা আবদুল কাদেরের মৃত্যুর গুজব নিয়ে বিরক্ত তাঁর পরিবার। দুদিন ধরে বিভিন্ন ওয়েব পোর্টাল ও ইউটিউব চ্যানেলে তাঁর মৃত্যুর গুজব ছড়ানো হচ্ছে। সেসব দেখে অনেক মানুষ ফেসবুকে এই অভিনেতার মৃত্যু নিয়ে পোস্ট দিচ্ছেন, যা তাঁর পরিবারের জন্য হয়রানিমূলক। এতে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন কাদেরের পরিবারের সদস্যরা। এমনকি সারা রাত ঘুমাতেও পারেননি তাঁরা।

গতকাল বুধবার রাত থেকে একের পর এক ফোন আসতে থাকে কাদেরের পরিবারের সদস্যদের কাছে। দেশ-বিদেশ থেকে স্বজন ও চেনা মানুষদের কেউ কেউ তাঁর মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হতে চাইছেন, কেউবা সমবেদনা জানাচ্ছেন। জীবিত একজন মানুষের মৃত্যুর খবর শুনে পরিবারের সদস্যরা কান্নায় ভেঙে পড়েছেন। দাদার মৃত্যুর গুজব শুনে কাঁদতে থাকে অভিনেতার নাতি সাদমান এহসাস ও নাতনি সিমরীন লুবাবা। অভিনেতা আবদুল কাদেরের পুত্রবধূ জাহিদা ইসলাম আজ বৃহস্পতিবার সকালে প্রথম আলোকে জানান, গতকাল রাত থেকে তাঁরা পরিবারের কেউ ঘুমাতে পারেননি। সবাই ফোন করে আবদুল কাদেরের খবর জানতে চাইছেন। অনেকেই ফোনে কান্নাকাটি করে তাঁদের সান্ত্বনা দিয়েছেন। 
জাহিদা বলেন, ‘জীবিত একটা মানুষকে এভাবে যারা মেরে ফেলছে, তারা একবার আমাদের পরিবারের কথা চিন্তা করুন। আমরা পুরো পরিবার এমনিতেই ভয়ের মধ্যে আছি, কখন কী হয়। সেখানে এ ধরনের খবরে পরিবারের সবার মনটাও ভেঙে যায়।’
অভিনেতা আবদুল কাদেরের জন্য তাঁর পরিবারের সবাই দোয়া চেয়েছেন। জীবিত একজন মানুষের মৃত্যুর গুজব না ছাড়ানোর অনুরোধও জানিয়েছেন তাঁরা। জাহিদা বলেন, ‘আমরাই গুজবের কথা শুনে কষ্ট পাচ্ছি, কাঁদছি। কিন্তু জীবিত মানুষটি যদি কোনোভাবে শুনতে পান এ খবর, তাঁর কেমন লাগবে? ভুয়া খবর ছড়িয়ে কেউ মানুষকে বিভ্রান্ত করবেন না। এই অভিনেতার মৃত্যুর খবর শুনে অভিনেত্রী সুইটি, আজিজুল হাকিমসহ মিডিয়ার একাধিক মানুষ ফোন করেছিলেন।’

এক ভিডিওবার্তায় লুবাবাকে বলতে দেখা গেছে, ‘আপনারা কেন আমার দাদাকে নিয়ে ভুয়া নিউজ বানাচ্ছেন। তিনি তো আমাদের মাঝে এখনো বেঁচে আছেন। তাঁকে নিয়ে ভুয়া নিউজ বানালে আমাদের কষ্ট লাগে। তিনি তো আমার জানের দাদা। আমার কি কষ্ট লাগে না? ভুয়া নিউজ না বানিয়ে দোয়া করেন।’ 
আবদুল কাদেরের শরীরে করোনার কোনো উপসর্গ না থাকায় চিকিৎসকেরা তাঁকে আজ সাধারণ বেডে নেওয়ার পরিকল্পনা করেছেন। পুনরায় পরীক্ষা করে নিশ্চিত হওয়ার পর কাদেরের ক্যানসারের চিকিৎসা শুরু করবেন তাঁরা। উন্নত চিকিৎসার জন্য ৮ ডিসেম্বর কাদেরকে চেন্নাইতে নেওয়া হয়। সেখানকার হাসপাতালে ১৫ ডিসেম্বর ক্যানসার ধরা পরে তাঁর। গত রোববার সন্ধ্যায় অভিনেতাকে ঢাকায় আনা হয়। পরদিন ২১ ডিসেম্বর তাঁর করোনা শনাক্ত হয়।

আবদুল কাদের নাটক, বিজ্ঞাপন, চলচ্চিত্র—তিন মাধ্যমেই জনপ্রিয়। তিনি জনপ্রিয় ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘ইত্যাদি’র নিয়মিত শিল্পী ছিলেন। কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের লেখা ‘কোথাও কেউ নেই’ ধারাবাহিক নাটকে বদি চরিত্রে অভিনয় করে পরিচিতি পান তিনি। অভিনয়ের পাশাপাশি বেশ কিছু বিজ্ঞাপনচিত্রেও কাজ করেছিলেন কাদের।




বিএনপি অতীতেও নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে তারা বিভিন্ন জায়গায় সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়েছে : তথ্যমন্ত্রী আওয়ামী পুলিশ বাহিনী শতভাগের চেয়ে বেশি দায়িত্ব পালন করেছে : খসরু নির্বাচনী সহিংসতা: পাহাড়তলীতে ভাইয়ের হাতে ভাই খুন বিএনপির কাউন্সিলর প্রার্থী ইসমাইল বালী আটক সৌদিতে পানির ট্যাংক পরিষ্কার করতে গিয়ে ৩ বাংলাদেশির মৃত্যু জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী : রেজাউল দেশ উন্নত হওয়ায় মানুষ ভোটে আগ্রহ হারিয়েছে: ইসি সচিব এই ভ্যাকসিনে দেশ করোনামুক্ত হবে: প্রধানমন্ত্রী সাতকানিয়া পৌর নির্বাচনে আ.লীগকে সমর্থন দিয়ে সরে গেলেন বিএনপির প্রার্থী প্রার্থীর মৃত্যুতে চসিকের ৩১নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ভোট পেছাল