মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২১

থানায় নিয়ে ৭০ বছরের বৃদ্ধাকে নির্যাতনের অভিযোগ

সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: জানুয়ারী ১২, ২০২১ ১৬:০১ পিএম

থানায় নিয়ে ৭০ বছরের বৃদ্ধাকে নির্যাতনের অভিযোগ

ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা থানার ভেতরে ৭০ বছর বয়সী বৃদ্ধাকে নির্যাতনের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ভুক্তভোগীর পরিবার। নির্যাতনের স্বীকার বৃদ্ধা খোদেজা খাতুন মুক্তাগাছা উপজেলার কুতুবপুর গ্রামের বাসিন্দা।

মঙ্গলবার (১২ জানুয়ারি) দুপুরে ময়মনসিংহ প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে নির্যাতনের স্বীকার বৃদ্ধা খোদেজা খাতুন এ অভিযোগ করেন।

লিখিত বক্তব্যে বৃদ্ধা খোদেজা খাতুন বলেন, জমি সংক্রান্ত বিরোধে গত ৩১ ডিসেম্বর মধ্যরাতে পুলিশ তাকেসহ ছেলে আবু বক্কর সিদ্দিক, আব্দুর রাজ্জাক এবং ছেলের স্ত্রী সুলতানা বেগমকে থানায় টেনে হিঁচড়ে নিয়ে যায়। পরে তাদের সাড়ে ৬ শতাংশ জমি প্রতিবেশী মানিক মিয়াকে দলিল করে দিতে চাপ দেয়। এতে রাজি না হওয়ায় তাদের ওপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করা হয়।

তিনি বলেন, ৩১ ডিসেম্বর পুলিশ ওই বৃদ্ধাসহ চারজনকে থানায় নিলে পরদিন ১ জানুয়ারি বিকেলে মানিক মিয়া মারপিট ও চুরির অভিযোগ এনে ৬ জনের নামে মামলা করেন। ওই মামলায় বৃদ্ধাসহ চারজনকে আদালতে পাঠালে বার্ধক্যের কারণে খোদেজা বেগমকে জেলহাজতে না পাঠালেও ছেলে আবু বক্কর সিদ্দিক, আব্দুর রাজ্জাক এবং ছেলের স্ত্রী সুলতানা বেগমকে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত।

জেলহাজতে পাঠানোর তিনদিন পর তিনজন জামিনে বেরিয়ে আসেন। এ সুযোগে মানিক মিয়া জমিটি দখলে নিয়ে বাউন্ডারি দেয়।

খোদেজা খাতুনের ছেলে আবু বক্কর সিদ্দিক বলেন, জমিতে আমার মা ধান আবাদ করে চলতেন। আমাকে কারখানা করে কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দেবে বলে এলাকার চিকু, সুরুজ, শরীফুল ইসলাম, হীরা, বাবুল এবং শাজাহান জমিটি মানিক মিয়াকে দানপত্র দলিল করে দিতে বলেন। পরে ৭০ হাজার টাকার বিনিময়ে জমিটি দানপত্র দলিল করে দেই। কিন্তু এক বছর হয়ে গেলেও জমিতে কোনো কারখানা হয়নি। জমির মূল্য অনুযায়ী টাকা না দিয়ে তারা বেদখলে নিয়েছে।

তিনি বলেন, পুলিশ কোনো কারণ ছাড়াই আমাদের ধরে নিয়ে মারপিট করে মামলা দিয়েছে। পরে তিনদিন জেল খাটার পর জামিনে বের হয়েছি। এখনও তারা নানাভাবে হুমকি দিচ্ছে।

মানিক মিয়া বলেন, সাড়ে ৬ শতাংশ জমি আবু বক্কর সিদ্দিকের কাছ থেকে ক্রয় করেছি। পরে জমিটি উদ্ধারে পুলিশের সহযোগিতা চেয়েছি। এ নিয়ে এলাকায় দরবারও হয়েছে। তাতে কোনো লাভ হয়নি। এখন জমিতে বাউন্ডারি দিয়ে দখলে নিয়েছি।

এদিকে নির্যাতনের বিষয়টি অস্বীকার করে মুক্তাগাছা থানার ওসি বিপ্লব কুমার বিশ্বাস বলেন, এক বছর আগে খোদেজা খাতুনের ছেলে আবু বক্কর সিদ্দিক জমিটি মানিক মিয়ার কাছে বিক্রি করলেও তা দখলে নিতে পারেনি। জমি দিতে বললে মানিককে ওই বৃদ্ধা ও তার ছেলেরা উল্টো মারধর করে। এ ঘটনায় ১ জানুয়ারি মামলা দায়েরের পর তাদের গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়।