ঢাকা, শনিবার, ১৫ আগস্ট ২০২০ , , ২৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

চাঁদপুরে চিকিৎসকের অবহেলায় রোগীর মৃত্যু, তদন্ত কমিটি

সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: জুলাই ৭, ২০২০ ৬:৩০ সকাল

[addtoany]

০৭-০৭-২০২০, ১১:৪৫

ফারুক আহম্মদ

চাঁদপুরে চিকিৎসকের অবহেলায় রোগীর মৃত্যু, তদন্ত কমিটি
শ্বাসকষ্টে ভোগা শাখাওয়াত হোসেন খান সুমন নামে এ রোগীকে হাসপাতালে নিয়ে যান তার স্বজনরা। জরুরি বিভাগে বেশকিছু সময় পড়ে থাকলেও এগিয়ে যাননি কর্তব্যরত চিকিৎসক ও তার সহকারীরা। এমন ঘটনা ঘটেছে চাঁদপুরে সরকারি হাসপাতালে।

হাসপাতালে চিকিৎসকের অবহেলায় রোগী মৃত্যুর ঘটনায় দায়িত্বহীন চিকিৎসকের বিরুদ্ধে কঠিন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানান রোগীর স্বজনরা। এদিকে এ ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। মঙ্গলবার (৭ জুলাই) এ কমিটি কাজ শুরু করবে বলে জানা গেছে।

সোমবার (৬ জুলাই) বিকেলে ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে চিকিৎসকের অবহেলায় রোগী মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। এ সময় জরুরি বিভাগের কর্মরত ডা. সৈয়দ আহমেদ কাজল এবং ব্রাদার জাহাঙ্গীরের অবহেলায় রোগী মৃত্যুর অভিযোগ আনেন স্বজনরা।

শাখাওয়াত হোসেন সুমন খানের বড় ভাই সেলিম খান অভিযোগ করেন, চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেয়ার পরও তার ভাইকে যথাসময়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়নি। ফলে শ্বাসকষ্ট নিয়েই তার ভাইয়ের মৃত্যু হয়েছে। তিনি আরো অভিযোগ করেন, জরুরি বিভাগের চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন তিনি।

সেলিম খান বলেন, সময় মতো তার ভাইকে যদি অক্সিজেন দেয়া যেত তা হলে তাকে বাঁচানো যেত।

শাখাওয়াতের বোন মোমেনা বেগম বলেন, শুধুমাত্র চিকিৎসার অভাবে আমার ভাইয়ের মৃত্যু হয়েছে। এই ঘটনায় দায়ীদের শাস্তি দাবি করেন তিনি। এই দু‘জন আরো বলেন, করোনার ভয় দেখিয়ে আমার সঙ্গে জরুরি বিভাগের লোকজন চরম দুর্ব্যবহার করেছেন।

বিএমএ চাঁদপুর শাখার সাধারণ সম্পাদক ডা. মাহমুদুন নবী মাসুম ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

হাসপাতালের আরএমও, করোনা বিষয়ক ফোকালপার্সন ডা. সুজাউদৌলা রুবেল বলেন, আমরা দিনরাত পরিশ্রম করে রোগীর সেবা দিচ্ছি। কিন্তু কোনো ব্যক্তির ভুলের জন্য তার দায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নেবে না।

এদিকে, হাসপাতালে রোগী মৃত্যুর ঘটনায় তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠনের কথা জানিয়েছেন, ভারপ্রাপ্ত তত্ত্বাবধায়ক ডা. মাহবুবুর রহমান। তিনি জানান, দায়ীদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে। মঙ্গলবার (৭ জুলাই) এই বিষয় কমিটি কাজ শুরু করবে বলে জানান তিনি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সর্দি জ্বর না থাকলেও শুধুমাত্র শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়ায় সোমবার বিকেলে স্বজনরা শাখাওয়াত হোসেন খান সুমনকে চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান। পরে সেখানে মারা যান তিনি।

চাঁদপুর সদর উপজেলার উত্তর পাইকাস্তা গ্রামের আব্দুল মান্নান খানের ছেলে শাখাওয়াত হোসেন খান সুমন (৩০) এলাকায় ক্ষুদে ব্যবসায়ী ছিলেন। তার দুটি শিশু সন্তান রয়েছে। পরিবারের এই সদস্যকে হারিয়ে স্বজনরা শোকের পাথর হয়ে গেছেন। রাতেই জানাজা শেষে পারিবারিক গোরস্থানে তাকে দাফন করা হয়েছে।

অন্যদিকে, ডা. সৈয়দ আহমেদ কাজলের বিরুদ্ধে দায়িত্বে অবহেলা এবং রোগীর সঙ্গে দুর্ব্যবহার আচরণের অভিযোগ রয়েছে। এর আগেও তিনি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল ডিবিসি নিউজের চাঁদপুর প্রতিনিধি তালহা জুবায়েরের সঙ্গে চরম দুর্ব্যবহার করেন। গত কয়েক মাস আগে অসুস্থতা নিয়ে এ সাংবাদিক হাসপাতালে গেলে জরুরি বিভাগের এই চিকিৎসক তার কক্ষ থেকে বের করে দেন। এই নিয়ে তখন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী সাংবাদিক।

সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) চাঁদপুর শাখার সভাপতি অধ্যক্ষ মোশারেফ হোসেন মিরন বলেন, অসুস্থ মানুষের সুস্থ হয়ে উঠার শেষ আশ্রয় হচ্ছেন একজন চিকিৎসক। কিন্ত কোনো একজন চিকিৎসকের অবহেলা বা ভুলের কারণে যদি অসুস্থ মানুষটির অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যু ঘটে, তা হলে তার দায় তিনি এড়াতে পারেন না।

তিনি আরো বলেন, চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ইতিমধ্যে চিকিৎসা সেবার মান বাড়িয়ে একটা আস্থা অর্জন করেছে। কিন্তু ব্যক্তি বিশেষের কারণে সেই অর্জন নষ্ট হতে পারে না।