ঢাকা, সোমবার, ১৩ জুলাই ২০২০ , , ২২ জ্বিলকদ ১৪৪১

বেসরকারি হাসপাতাল সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে সাবেক ছাত্রনেতাদের হুশিয়ারি

সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: জুন ১, ২০২০ ৯:২২ দুপুর

[addtoany]

নিউজ ডেস্ক :: বেসরকারি হাসপাতাল মালিকদের সিন্ডিকেট ও কিছু স্বার্থান্বেষী মানুষ পরিকল্পিতভাবে চট্টগ্রামের জনসাধারণকে চিকিৎসাহীন মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে বলে দাবি করেছেন চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক নেতৃবৃন্দ।

সরকারি নির্দেশনা মেনে চট্টগ্রামের বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে সকল রোগীদের চিকিৎসাসেবা দিতে হাসপাতাল মালিকদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন তারা।

চট্টগ্রামে নাগরিকদের চিকিৎসাসেবা প্রদানে এখন পর্যন্ত বেসরকারি হাসপাতালগুলোর ভূমিকাকে অমানবিক ও গণবিরোধী উল্লেখ করে এর বিরুদ্ধে এবার আন্দোলনে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতারা।

চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এম আর আজিম বলেন, ‘চট্টগ্রামে বেসরকারি হাসপাতালে রোগীরা চিকিৎসা সেবা পাচ্ছে না। কয়েকজন স্বার্থান্বেষী মানুষ পরিকল্পিতভাবে চট্টগ্রামের মানুষদের চিকিৎসাহীন মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে। সকল রোগীকে চিকিৎসা দিতে সরকারের নির্দেশনা থাকলেও সামান্য জ্বর কাশি নিয়েও অনেকে হাসপাতালে ভর্তি হতে পারছে না। এই পরিস্থিতি বেশিদিন চলতে দেওয়া যাবে না।’

তিনি বলেন, ‘কয়েকজন স্বার্থান্বেষী মানুষ যেভাবে সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে একটা অশুভ খেলা খেলছে সেটা এখন সবার কাছে স্পষ্ট। আমরা তাদের হুঁশিয়ার করে দিতে চাই। মানুষের জীবন নিয়ে এমন ছিনিমিনি খেলার পরিনতি খুবই ভয়াবহ হবে।’

দ্রুত সময়ের মধ্যে এই ধরণের মরণখেলা বন্ধ করতে হবে উল্লেখ করে এম আর আজিম বলেন, ‘সরকার এর মধ্যেই বেসরকারি হাসপাতালগুলোকে স্পষ্ট নির্দেশনা দিয়েছে। আমরা আশা করছি তা মেনে তারা নাগরিকদের চিকিৎসা দেবে। না হলে এই অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক নেতাকর্মীদের নিয়ে কঠোর আন্দোলনে যাব আমরা।’

এই বিষয়ে মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. সালাউদ্দিন বলেন, ‘করোনার এই ভয়াবহ পরিস্থিতিতে মানুষকে জিম্মি করে যে মরণখেলায় মেতে উঠেছে একটি মহল তা আমাদের নজরে রয়েছে। আমরা তাদের হুঁশিয়ার করে দিতে চাই। অবিলম্বে তারা তাদের এই অবস্থান থেকে সরে না আসলে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক নেতাকর্মীদের নিয়ে কঠোর আন্দোলনে যাব আমরা। এই বিষয়ে আমরা নিজেদের মধ্যে আলাপ আলোচনা করেছি। নাগরিকদের স্বার্থরক্ষায় আমরা আমাদের জীবনের শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে রাজপথে থাকতে বদ্ধপরিকর।’