সাংবাদিককে তুলে নিয়ে গেলো মোবাইল কোর্ট : বিএফইউজে’র নিন্দা

কুড়িগ্রাম :: বাড়িতে ‘মদ ও গাঁজা পাওয়া গেছে’ অভিযোগ এনে মধ্যরাতে অনলাইন নিউজ পোর্টাল বাংলা ট্রিবিউন- এর কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি আরিফুল ইসলামকে তুলে নিয়ে গেছে জেলা প্রশাসনের মোবাইল কোর্ট। এসময় তার বাসার দরজা ভাঙচুর করা হয়।

গত শুক্রবার (১৩ মার্চ) রাতে ১৫-১৬ জন আনসার সদস্যকে নিয়ে অভিযান চালান ডিসি অফিসের দুই-তিনজন ম্যাজিস্ট্রেট।

তাদের দাবি, আরিফুলের বাসায় আধা বোতল মদ ও দেড়শ’ গ্রাম গাঁজা পাওয়া গেছে।

সাংবাদিক আরিফুলের স্ত্রী জানান, শুক্রবার রাত ১২টার দিকে খাওয়া শেষে ঘুমানোর প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম। এ সময় হঠাৎ কে বা কারা দরজা ধাক্কাধাক্কি শুরু করলে আমার স্বামী ফোনে স্বজনদের বিষয়টি জানান। এক পর্যায়ে দরজা ভেঙে তারা আমার স্বামীকে মারধর শুরু করে। আমি বাধা দিতে গেলে তারা আমাকেও মারতে উদ্যত হয়। পরে আমার স্বামীকে তুলে নিয়ে যায়।

কুড়িগ্রাম সদর থানার ওসি মাহফুজুর ইসলাম বলেন, ‘আমরা জানতে পেরেছি ডিসি অফিসের লোকজন মোবাইল কোর্টের জন্য আরিফুলকে নিয়ে গেছে।’

সূত্র জানিয়েছে, জেলা প্রশাসক মোছা. সুলতানা পারভীন একটি পুকুর সংস্কার করে নিজের নামে নামকরণ করতে চেয়েছিলেন। আরিফুল এ বিষয়ে নিউজ করার পর থেকেই তার ওপর ক্ষুব্ধ ছিলেন ডিসি।

এছাড়া, সম্প্রতি জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে নিয়োগ নিয়ে ডিসি সুলতানা পারভীনের অনিয়ম নিয়েও প্রতিবেদন তৈরি করেন আরিফুল। এ কারণে আরিফুলের ওপর আরও ক্ষুব্ধ হন তিনি।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক সুলতানা পারভীনের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে ফোনে পাওয়া যায়নি।

 

এদিকে সাংবাদিক গ্রেফতারের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে), চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন (সিইউজে), চট্টগ্রাম রিপোর্টার্স ফোরাম (সিআরএফ)সহ সারা দেশের সাংবাদিক সমাজ। সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ সুষ্ঠু তদন্তপূর্বক অবিলম্বে সাংবাদিক আরিফুল ইসলামকে মুক্তির দাবি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *