ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৬ মে ২০২০ , , ৩ শাওয়াল ১৪৪১

সুনামগঞ্জে ঘর বরাদ্দ পাওয়া ১৭জনের ১২জনেই লাখপতি

জাহাঙ্গীর আলম ভূঁইয়া সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি । সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: জুন ১২, ২০১৯ ১:২০ দুপুর

[addtoany]

সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলায় গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার(কাবিটা)কর্মসূচী ২০১৮-২০১৯এর আওতায় দুর্যোগ সহনীয় বাসগৃহ নির্মাণের বরাদ্ধকৃত ১৭টি পরিবারের মধ্যে উপকারভোগীদের নামের তালিকায় ১২জনেই লাখপতি থেকে শুরু করে কোটিপতি। এছাড়াও চেয়ারম্যান ও মেম্বার আপন ভাইও রয়েছে এই তালিকায়। এঘটনায় প্রকাশ পাওয়ায় পর থেকে এলাকায় জুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।
এবিষয়ে আনন্দপুর গ্রামের হুমায়ুন মিয়ার ফুফু অসহায় গরিব মহিলা মমিনা বেগম বাদি হয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট গত ৩জুন একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন।
জানাযায়,পিআইও দপ্তর কর্তৃক কাবিটা বরাদ্দ হতে উপজেলায় ১৭টি গৃহহীন পরিবারের জন্য ২লাখ ৫৮হাজার টাকা বরাদ্দ করা হয়। তালিকা যাচাই-বাছাই না করেই ১৩মে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল মুক্তাদির হোসেন ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আজিজুর রহমান এই তালিকা অনুমোদন করেছেন। সেই অনুমোদনকৃত তালিকায় ১৭টি পরিবারের মধ্যে ৫টি পরিবার ছাড়া সবাই লাখপতি থেকে শুরু করে কোটিপতি ব্যক্তি বলে অভিযোগ উঠেছে।
এসব ব্যক্তিরা হলেন,১নং আটগাঁও ইউপি’র ফরিদপুর(মামুদনগর)গ্রামের আবু নছর মিয়ার ছেলে মতিউর রহমান। তিনি চেয়ারম্যান আবুল কাশেম আজাদের জামাতা। একই গ্রামের মনোয়ার হোসেনের ছেলে ইয়াহিয়া আলম,উজান ইয়ারাবাদ গ্রামের উকিল আলীর ছেলে কোটিপতি সালাম মিয়া ও ইউপি সদস্য বশির মিয়ার আপন ভাই আব্দুল হামিদ,বাহাড়া ইউপির ডুমরা গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক অভিমূন্য দাসের ছেলে চিন্ময় দাস,মেঘনাপাড়া গ্রামের প্রাণধন দাসের স্ত্রী শ্রীমতি বালা দাস,ঘুঙ্গিয়ারগাঁও গ্রামের আবু তাহেরের স্ত্রী ইমরানা বেগম অন্যতম।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছিুক একাধিক স্থানীয় লোকজন জানান,টাকার বিনিময়ে এমন অনিয়ম করা হয়েছে। আর হবিবপুর ইউপির আনন্দপুর গ্রামের হামিদ মিয়ার স্ত্রী হোসেনা বেগমের কোনো জমি নাই,তার নাম দিয়ে আপন ভাসুরের ছেলে ধনী ব্যক্তি হুমায়ুন মিয়ার পিতার জায়গায় নতুন ঘরটি তৈরির ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এছাড়াও সঠিক ভাবে তদন্ত করা হলে সব প্রমানিত হবে।
পিআইও আজিজুর রহমান অনিয়মের কথা স্বীকার করে বলেন,তালিকা তৈরি করার সময় ত্রুটি হয়েছে। নতুন করে আবারও যাচাই-বাছাই করে তালিকা প্রণয়ন করা হবে।
এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল মুক্তাদির হোসেন মোবাইলে বুধবার বিকালে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেন নি।